1. zobairahmed461@gmail.com : Zobair : Zobair Ahammad
  2. Jalalhossen555@gmail.com : Jalal Hossen : Jalal Hossen
  3. khorshed.eco@gmail.com : Khorshed Alom : Khorshed Alom
  4. hossaintnt@live.com : Shah Sumon : Shah Sumon
সোমবার, ১৭ জানুয়ারী ২০২২, ০২:০৯ অপরাহ্ন

“বেরোবি গভীর ষড়যন্ত্রের শিকার” বিচারপতি সামসুজ্জামান চৌধুরী মানিক

চান্দিনা অনলাইন এক্সপ্লোরার 
  • আপডেট সময়: বৃহস্পতিবার, ৭ জানুয়ারী, ২০২১
  • ৬৬৪ বার পড়া হয়েছে 

বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয় রংপুর এ নাশকতা করছে একটি গ্রুপ। তারা অবরুদ্ধ করে রেখেছে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রো-ভিসি প্রফেসর ড. শরিফা সালওয়া ডিনা এবং অর্থ ও হিসাব দপ্তরের পরিচালক হাফিজুর রহমানকে। এই নিয়ে প্রশাসনের একজন বলেন, “তাদের উদ্দেশ্য পতাকা বিতর্কের মত নতুন আরেক বিতর্ক সৃষ্টি করা এবং এরই অংশ হিসেবে এই করোনার মধ্যে ভীড় জমিয়ে বিশ্ববিদ্যালয় ও দেশের ক্ষতির পাঁয়তারা করছে”।
নাশকতা সৃষ্টিকারী গ্রুপটির নেতৃত্বে রয়েছেন তথাকতিত অধিকার সুরক্ষা পরিষদের আহ্বায়ক ড. মতিউর রহমানের, শিক্ষক সমিতির সাবেক সভাপতি গাজী মাজহারুল আনোয়ার, বেরোবির সাবেক দুর্নীতিবাজ ভিসি জলিল সাহেবের ভায়রা ভাই ড. তুহিন ওয়াদুদ, বঙ্গবন্ধু পরিষদের বেরোবি শাখার সম্পাদক মশিউর রহমানসহ অনেকে। এদের বিরুদ্ধে রয়েছে দুর্নীতি, নিয়োগ বাণিজ্য, নাশকতা, ক্লাস ফাঁকি দেওয়া, ও ইচ্ছাকৃত সেশনজট তৈরি সহ অজস্র অভিযোগ।
অভিযোগ আছে যে, ড. মতিউর রহমান জিয়া পরিষদের সদস্য এবং স্বাধীনতা বিরোধীদের সাথে তার রয়েছে গভীর আঁতাত; যার অংশ হিসেবে তিনি বিশ্ববিদ্যালয়কে অস্থিতিশীল করার পায়তারা করছে এবং নাশকতার আশ্রয় নিচ্ছেন।
অন্যদিকে বেরোবির গণিত বিভাগের সহকারী অধ্যাপক মশিউর রহমান। বঙ্গবন্ধু পরিষদের পদ ভাগিয়ে তিনি নিজের ক্ষমতা প্রদর্শনের প্রথম পদক্ষেপ হিসেবে নিজের রুম ভাংচুর করে সহকর্মীকে ফাঁসানোর পায়তারা করেন এবং সিসি ফুটেজ তার এই অপকর্মের সাক্ষী। অন্যদিকে বঙ্গবন্ধু পরিষদের নাম ভাঙ্গিয়ে নৈতিক অবক্ষয় এবং নিয়োগ বানিজ্যের লোভে পড়ে তিনি বেরোবির গণিত বিভাগের সহকারী শিক্ষক হয়ে বেসরকারী কলেজের প্রভাষকের (নামধারী ভিসি) নেতৃত্বে বে-আইনী বিশ্ববিদ্যালয়ের (সৈয়দপুর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক বিশ্ববিদ্যালয়) চার নম্বর ট্রাস্টি হয়েছেন। যা বেরোবি বিশ্ববিদ্যালয় আইন-২০০৯ ভঙ্গ এবং অবমাননার শামিল। বেরোবি আইন-২০০৯ এর ৪৭(৬) এ চাকুরীর শর্তাবলীতে বলা হয়েছে যে, “বিশ্ববিদ্যালয়ের কোন বেতনভোগী শিক্ষক বা কর্মকর্তাকে তাহার কর্তব্যে অবহেলা, অসদাচরণ, নৈতিক স্খলন বা অদক্ষতার কারণে সংবিধি দ্বারা নির্ধারিত পদ্ধতিতে চাকুরী হইতে অপসারণ বা পদচ্যুত করা অথবা অন্য কোন প্রকার শাস্তি প্রদান করা যাইবে”।
এ নিয়ে সাবেক বিচারপতি সামসুজ্জামান চৌধুরী মানিক বক্তৃতায় বলেন, “স্বাধীনতা বিরোধীরা গভীর ষড়যন্ত্র করছে বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে, এদের কঠোর হস্তে দমন করতে বেরোবির উপাচার্যের প্রতি আহ্বান জানান তিনি”।

লেখাটি শেয়ার করুন 

আপনার মতামত লেখুনঃ

এই ক্যাটাগরির আরো খবর 
© All rights reserved © 2020 ChandinaOnlineExplorer.com
Theme Customized BY LatestNews